মানুষের মন, পাগল মন

আজব এক জিনিস, মানুষের মন!

মানুষের মন আছে, দেহ আছে! এই দুইয়ের সমন্বয়ে যে মানব প্রানীর পরিচিতি সেই মানুষের নিজেরই কতটা জানা শোনা আছে মন বিষয়ে? আমি খুব কম জানি। যতদূর জানি, আজব এক জিনিস মানুষের মন।

মন ও দেহের মিল, মানুষের মন

দেহের ভেতরে কত জ্বালা? মনের ভেতরে তার চেয়ে হাজার গুন বেশি জ্বালা জ্বলে পুড়ে অঙ্গার হয় তবু কেউ দেখে না। দেহের জন্য খাবার লাগে, মনের খাবার অনেকেই চেনে না। আবার এই মনের জন্য পাগল দেহ বনবাসি হতেও দেখেছেন অনেক মানুষ। মানুষের মন কত যে মিল অমিলের খেল!

মানুষের মন নিয়ে গবেষনা

মন নিয়ে গবেষনা অনেক পুরনো। বিজ্ঞানীরা ভেবেছেন, মানুষের মনে কী থাকে? কিভাবে মনে রাখে? মেমরী বা স্মৃতি নিয়ে আছে হাজারো ব্যাখ্যা। মনের ব্যাখ্যায় মগজের ব্যাখ্যা আসে। ঘুরে ফিরে চলে আসে দেহের অংগ প্রত্যংগ। তার মানে ব্যবহারিক বিজ্ঞানী বা ডাক্তার, তারা মনের সাথে দেহের মিলন ঘটিয়ে পুরো বিষয়টি বোঝান।

ব্যবহারিক মন, মানুষের মন, দেহ কিংবা আত্মা!

মনের ভেতর পচন ধরলে বাইরে খুব বেশি টের পাওয়া যায় না। অথচ শরীরের কোথাও পচন ধরার আগেই উপসর্গ মেলে। মুখে ব্রন উঠে, ফোঁড়ার মত হয়ে বিষাক্ত পচন বেরিয়ে আসতে চায়। অথচ মনের বেলায় ভিন্ন। যত যা কিছু আছে, সব নিয়ে গহীন থেকে গভীরে তলিয়ে যায়। মন, যখন তখন কোথায় যে হারিয়ে যায়। আত্মা নিয়ে যা বলার তা মন নিয়ে বলার কাছাকাছি। আত্মা কি মন নয়?

মানুষের মন নিয়ে মহতীদের আবেগ!

এই মনের জন্য গীতিকার পাগল দিউয়ানা হয়ে লিখেছেন,

পাগল মন,

মনরে,

মন কেন এত কথা বলে?

কে জানে কেন বলে? আমার মনেও হঠাৎ বলে দিল, তাই লিখে দিলাম!